• বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৪১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
এড. আমজাদ হোসেন কখনও অর্থবিত্তের জন্য রাজনীতি করেননি-এড.ফরিদুল ইসলাম এড.আমজাদ হোসেনের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী সফলের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা সম্পন্ন পূর্ব বড় ভেওলা মাহমুদিয়া হেফজখানা ও এতিমখানায় সাহায্যের আবেদন চকরিয়ায় দখলবাজরা কেটে নিল সামাজিক বনায়নের শতাধিক গাছ মানবিক সাহায্যের আবেদন জাফর আলম এমপি ও জাহেদুল ইসলাম লিটু কে বিশাল সংবর্ধনা আধুনিক ও বাসযোগ্য চকরিয়া পৌরসভা রূপান্তরে কাজ করবো-মেয়র প্রার্থী এড. ফয়সাল চকরিয়ায় ছাত্রলীগ সভাপতিকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ চকরিয়া বিএমচর ইউপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাংচুর, চেয়ারম্যানসহ আহত ৪ চকরিয়া কোনাখালীতে পৈতৃক ভিটা জবর দখলে নিতে সন্ত্রাসী হামলা

যশোরের কেশবপুর, মণিরামপুরে ৯ ক্লিনিকের ডায়াগনস্টিক বন্ধ ,ভুয়া ডাক্তার আটক

সুমন চক্রবর্তী,যশোর জেলা প্রতিনিধি / ৮৩ সময় দেখুন
আপডেট : সোমবার, ২৪ আগস্ট, ২০২০

যশোরের কেশবপুর ও মণিরামপুর উপজেলায় অবৈধ ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান চালিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। এ সময় দুই উপজেলার মোট ৯টি অবৈধ প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অভিযানের নেতৃত্বে থাকা যশোর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ও সিভিল সার্জনের প্রতিনিধি ডা. মীর আবু মাউদ। এসময় আবদুস সামাদ ওরফে আজাদ নামে এক ভুয়া চিকিৎসককে আটক করা হয়। পরে অবশ্য মুচলেকা দিয়ে মুক্তি পান তিনি। তার প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড ও ব্যবস্থাপত্রের প্যাড পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে।
ডা. আবু মাউদ জানান, বন্ধ ঘোষণা করা প্রতিষ্ঠানগুলো হলো মণিরামপুর উপজেলার অর্থোপেডিক ডা. নজরুল ইসলামের মালিকানাধীন রোকেয়া ক্লিনিক, কেশবপুর উপজেলার ডিজিটাল মেডিকেল ডায়াগনস্টিক সেন্টার, আরিয়ান ডায়াগনস্টিক সেন্টার, হীরা ডায়াগনস্টিক সেন্টার, কেশবপুর সার্জিক্যালের ডায়াগনস্টিক সেন্টার, মহা কবি মাইকেল ডায়াগনস্টিক সেন্টার, কপোতাক্ষ ডায়াগনস্টিক সেন্টার, রাইজিং প্যাথলজি সেন্টার ও পাইসল সেন্টার। তিনি জানান, এই প্রতিষ্ঠানগুলো অবৈধভাবে চলে আসছিলো। ৯টির ৫ প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স নেই। লাইসেন্স পাওয়ার জন্য মালিকরা অনলাইনে আবেদনও করেননি।
বাকি ৪ প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্সের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে গেছে অনেক আগেই । চিকিৎসাসেবা ও পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে রীতিমতো প্রতারণা চলে আসছিলো। অবৈধ এসব ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টারে চিকিৎসক ও এমটি ল্যাব নেই। প্যাথলজি কক্ষের অবস্থাও খুব খারাপ। ডা. মাউদ আরো জানান, কেশবপুর হাসপাতালের পার্শ্বে রাজগঞ্জ রোডে অবস্থিত পাইলস সেন্টারে আব্দুস সামাদ ওরফে আজাদ চিকিৎসক পরিচয়ে মানুষের অপচিকিৎসা করে আসছিলেন। অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়। এসময় তিনি চিকিৎসকের কোন সার্টিফিকেট দেখাতে পারেননি। তার প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স নেই। আব্দুস সামাদ আর কোনদিন চিকিৎসসক পরিচয়ে মানুষের সাথে প্রতারণা করবেন না এমন মুচলেকায় তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এসময় প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড ও ভুয়া ব্যবস্থাপত্র আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হয়।
অভিযান টিমে আরও উপস্থিত ছিলেন মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শুভ্রা রানী, কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আলমগীর কবির, আবাসিক মেডকিল অফিসার (আরএমও) ডা. জাহিদ, সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রন) ডা. নাসিম ফেরদৌস, স্যানেটারি কর্মকর্তা পার্থ প্রতীম লাহিড়ী প্রমুখ।
দুই থানার পুলিশ অভিযানে সহযোগিতা করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category