• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
এড. আমজাদ হোসেন কখনও অর্থবিত্তের জন্য রাজনীতি করেননি-এড.ফরিদুল ইসলাম এড.আমজাদ হোসেনের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী সফলের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা সম্পন্ন পূর্ব বড় ভেওলা মাহমুদিয়া হেফজখানা ও এতিমখানায় সাহায্যের আবেদন চকরিয়ায় দখলবাজরা কেটে নিল সামাজিক বনায়নের শতাধিক গাছ মানবিক সাহায্যের আবেদন জাফর আলম এমপি ও জাহেদুল ইসলাম লিটু কে বিশাল সংবর্ধনা আধুনিক ও বাসযোগ্য চকরিয়া পৌরসভা রূপান্তরে কাজ করবো-মেয়র প্রার্থী এড. ফয়সাল চকরিয়ায় ছাত্রলীগ সভাপতিকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ চকরিয়া বিএমচর ইউপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাংচুর, চেয়ারম্যানসহ আহত ৪ চকরিয়া কোনাখালীতে পৈতৃক ভিটা জবর দখলে নিতে সন্ত্রাসী হামলা

প্রত্যক্ষদর্শীরা পুলিশকে বলল ঘটনাটি সাজানো

পেকুয়া প্রতিনিধি / ৬৬ সময় দেখুন
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা পুলিশকে বলল ঘটনাটি সাজানো। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে জুনাইদ নামক যুবক একটি বাড়িতে ঢুকে পড়ে। তাকে ধাওয়া দেয়া হয়নি। কিছুদিন আগে টইটং হাজী বাজারে জুনাইদসহ কয়েকজন মিলে আজিজুর রহমান নামক এক কৃষককে প্রকাশ্যে মারধর করা হয়েছে। ওই ঘটনায় হেনস্থার শিকার ব্যক্তি চকরিয়া জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে জুনাইদ ও তার মালিক জুবাইদুল্লাহ লিটনসহ অজ্ঞাত ব্যক্তিদের নামে নালিশি অভিযোগ পৌছান। বিচারিক আদালত সেটি আমলে নিয়েছেন। অধিকতর তদন্তসহ এর আইনগত পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য ওসি পেকুয়াকে আদেশ দেন। এ দিকে পূর্বের সৃষ্ট ঘটনার জের ধরে টইটংয়ের ছনখোলারজুম গ্রামে পৃথক ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে। সুত্র জানায়, ৬ সেপ্টেম্বর বেলা ২ টার দিকে পেকুয়া থানা পুলিশ ছনখোলায় যান। আবদুল মাবুদের বাড়ি থেকে জুবাইদুল্লাহ লিটনের কর্মচারী জুনাইদ (২৫) কে উদ্ধার করে। পেকুয়া থানার এস,আই সুমন সরকার সেখানে গিয়েছিলেন। প্রত্যক্ষদর্শী আ’লীগ নেতা মুজিবুর রহমান চৌধুরী জানান, আমাকে প্যানেল চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন ফোন দেন। বলছিলেন ছনখোলারজুম মাবুদের বাড়িতে ঘটনা হয়েছে। আমি গিয়ে দেখি সেখানে জুনাইদ নামক ছেলেটি অবস্থান করছে। তাকে ধাওয়া ও ভীতি ছড়ানো হয়নি। আজিজুর রহমান ও তার ভাই হাসান শরীফ এলাকায়ও ছিলনা। ওসি নাকি ফোন করছিলেন সাহাব উদ্দিন মেম্বারকে। লিটনের ফোনের ম্যাসেজ ছিল মূলত প্রতিপক্ষকে ফাঁসানো। হাসান শরীফ জানান, আগে একটি মিথ্যা মামলায় জেলে গিয়েছিলাম। এখন আবার ষড়যন্ত্র হচ্ছে। বড় ভাই আজিজুর রহমানকে ৪ টি মামলায় ১৫ দিনের ব্যবধানে আসামী হতে হয়েছে। হারবাংয়ের, বানিয়ারছড়ার, পহরচাঁদার বনবিট তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়েছে। এ সব প্রভাবশালী লিটন টাকা দিয়ে করিয়ে নিয়েছে। ঢালার মুখ মৃত খলিলুর রহমানের পুত্র রহিম জানান, আমাকে হাজি বাজারে আটকিয়ে টাকা আদায় করেছে। ফজল কবিরের স্ত্রী মনোয়ারা জানান, আমার ছেলে ইউসুফকে আটকিয়ে হাজী বাজারে টাকা নেওয়া হয়েছে। এখন বাজারে যাওয়া যাচ্ছেনা। পথে মারধরসহ জিনিসপত্র লুট করা হচ্ছে। হাসান শরীফের স্ত্রী সেলিনা আক্তার, আহমদ শফির স্ত্রী জাকেরা বেগম, আবদুল মালেকের স্ত্রী আমেনা খাতুন সহ অনেকে জানান,পাহাড় থেকে লাকড়ি কুড়িয়ে এখানকার মানুষ জীবিকা চালায়। হাজী বাজারে গেলে এ সব কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। চরম অবিচার, নিপীড়ন ও জুলুম চলছে পাহাড়ী অঞ্চলের মানুষগুলোর উপর। আমরা এর নিস্তার চাই। আজিজুর রহমান বলেন, আমার উপর ষড়যন্ত্র হচ্ছে। লিটন আমাকে মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। এখন আরেকটি মামলা দিতে তার কর্মচারী জুনাইদকে নিয়ে নাটক করেছে। পুলিশ বিষয়টি বুঝে গেছেন। পেকুয়া থানার এস,আই সুমন সরকার জানান, আসলে এদের বিরোধ পাহাড় নিয়ে। ওসি স্যার আমাকে পাঠিয়েছিলেন। সেখানে তেমন কিছু হয়নি। টইটং ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন জানান, আসলে এদের ভূল বুঝাবুঝি। আমরা চাই এদের বিরোধ মিটমাট হয়ে যাক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category