• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫০ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
এড. আমজাদ হোসেন কখনও অর্থবিত্তের জন্য রাজনীতি করেননি-এড.ফরিদুল ইসলাম এড.আমজাদ হোসেনের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী সফলের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা সম্পন্ন পূর্ব বড় ভেওলা মাহমুদিয়া হেফজখানা ও এতিমখানায় সাহায্যের আবেদন চকরিয়ায় দখলবাজরা কেটে নিল সামাজিক বনায়নের শতাধিক গাছ মানবিক সাহায্যের আবেদন জাফর আলম এমপি ও জাহেদুল ইসলাম লিটু কে বিশাল সংবর্ধনা আধুনিক ও বাসযোগ্য চকরিয়া পৌরসভা রূপান্তরে কাজ করবো-মেয়র প্রার্থী এড. ফয়সাল চকরিয়ায় ছাত্রলীগ সভাপতিকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ চকরিয়া বিএমচর ইউপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাংচুর, চেয়ারম্যানসহ আহত ৪ চকরিয়া কোনাখালীতে পৈতৃক ভিটা জবর দখলে নিতে সন্ত্রাসী হামলা

দৈনিক বিডি খবর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক লিটন দত্তের বিরুদ্ধে নড়াইল প্রেসক্লাবে তার স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

সুমন চক্রবর্তী,নিজস্ব প্রতিনিধি / ৯৫ সময় দেখুন
আপডেট : শুক্রবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২০

নড়াইল থেকে প্রকাশিত পত্রিকা দৈনিক বিডি খবর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক লিটন দত্তের বিরুদ্ধে তার প্রথম স্ত্রী পপি বিশ্বাস যৌতুক,মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন এবং লিটন দত্তের কুকর্মের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।
আজ শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০ ঘটিকার সময় যশোরের অভয়নগর উপজেলার বাঘুটিয়া ইউনিয়নের সিংগাড়ি গ্রামের পল্লী চিকিৎসক প্রমথ বিশ্বাসের কন্যা পপি বিশ্বাস নড়াইল প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিকদের সামনে স্বামীর যৌতুকের দাবি,বিভিন্ন অনৈতিক ও অত্যাচারের কাহিনী তুলে ধরে এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

এ সময় ১০ বছর বয়সী পূত্র দিপ্র ও ৬ বছর বয়সী কন্যা জয়িতা উপস্থিত ছিল।
পপি বিশ্বাস লিখিত বক্তব্যে প্রেসক্লাবে সাংবাদিকদের জানান, ২০০৭ সালে সদর উপজেলার দারিয়াপুর ইউনিয়নের রায়খালী গ্রামের লিটন দত্তের সাথে তার পারিবারিকভাবে বিবাহ হয়।
বিয়ের সময় আমার বাবা আমার স্বামী লিটনকে যৌতুক হিসেবে নগদ ৪লাখ টাকা ও ৪ ভরি স্বর্ণ প্রদান করেন।
কিন্তু স্বামীর লোভ ছিল অন্তহীন,বিয়ের পর থেকেই আরও যৌতুকের দাবিতে তার ওপর শারীরিক নির্যাতন শুরু করে।
যৌতুকের টাকা দিতে ব্যর্থ হলেই তাকে বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হতো।
মেয়ের ভবিষ্যতের কথা ভেবে বিভিন্ন সময় বাবা সমিতি থেকে লোন করে,নিজেদের জমির ফসল ও জমি বিক্রি করে এবং জমি বন্দক দিয়ে স্বামীর দাবিকৃত যৌতুকের অর্থ পরিশোধ করেছে।
এভাবে স্বামীকে নগদ, বিভিন্ন দ্রব্য সামগ্রী ও শ্বশুর বাড়িতে জমি রাখতে প্রায় ১৫ লাখ টাকার বুঝ দেওয়া হয়।
এতেও তার লোভ বিন্দুমাত্র কমেনা,বরং বেড়ে যায়। পরবর্তীতে স্বামীর দাবিকৃত টাকা দেওয়ার সামর্থ না থাকায় আবার নেমে আসে নির্যাতন।
এ কারনে দ্বিতীয় সন্তান হবার পর দু’সন্তানসহ আমাকে বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়।
৪ বছর ধরে সে আমার এবং দু’সন্তানের কোনো খোঁজ-খবর নেয় না।
আমি নিজে রক্ত বিক্রি করে তাকে টাকা দিয়েছি। বাবার এতো বড়ো দেনা শোধ করতে নড়াইলে একটি ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারে এবং ঢাকায় গার্মেন্টস-এ চাকরি করতে বাধ্য হয়েছি প্রতারক স্বামী লিটন দত্তের জন্য।
বাবা মানে কি সন্তানরা তা জানেই না,স্বামী সন্তানদের পরিচয় দিতে চায় না।
বর্তমানে স্বামী নড়াইল শহরে এক বিবাহিতা মহিলা নিয়ে ভাড়া থাকে।
গত মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) নড়াইল শহরের রূপগঞ্জ এলাকায় স্বামীর সাথে দেখা করতে গেলে সে ও তার কয়েক সহযোগি আমাকে মারধর করে এবং ধাক্কা দিয়ে রাস্তার উপরে ফেলে দেয় এবং লিটন দত্ত ও তার সহযোগী আমাকে হুমকি ধামকী দেয়।
গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর স্বামী তার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে একটি রিগ্যাল নোটিস পাঠিয়েছে,যা সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন।
একজন পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক কিভাবে এতো বড় প্রতারক হয়? আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।
এদিকে লিটন দত্তের বিরুদ্ধে সদর আমলী আদালতে ২০ লাখ টাকার চেক ডিজঅনারের ঘটনায় নেগোশিয়েবল ইন্সট্রুমেন্ট অ্যাক্টে মামলা হয়েছে।
এ মামলার আইনজীবী রাজু আহম্মেদ সাংবাদিকদের জানান,কয়েক মাস পূর্বে শহরের ভওয়াখালী এলাকার নূর মোহাম্মদের কাছ থেকে লিটন দত্ত ব্যবসা করতে ১ মাসের জন্য ২০ লাখ নেয়।
এ সময় লিটন নূর মোহাম্মদকে ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক,নড়াইল শাখার ২০ লাখ টাকার একটি চেক প্রদান করে।
পরে নূর মোহাম্মদ ১ মাস অতিবাহিত হলে টাকা পরিশোধের জন্য চেকটি ফাস্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকে উপস্থাপন করলে অপর্যাপ্ত তহবিল থাকায় চেকটি ডিজঅনার হয়।
এ ঘটনায় পেপার বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে লিটনকে লিগ্যাল নোটিশ দেওয়া হলেও টাকা পরিশোধ না করায় তার বিরুদ্ধে ১ সেপ্টেম্বর সদরের আমলী আদালতে চেক ডিজঅনার মামলা হয়েছে।
অভিযোগে জানা গেছে,লিটন দত্ত পত্রিকাকে পূজিঁ করে বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে ব্যবসার জন্য এবং বিভিন্ন সুযোগ পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে কমপক্ষে অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।
বিডি খবর পত্রিকা কে সামনে রেখে পত্রিকার প্রতিনিধিদের কাছ থেকেও লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক যৌতুক লোভী লিটন দত্ত।
এই প্রতারনা নিয়ে অনেক বার নিজের পত্রিকার প্রতিনিধির হাতে মার ও খেয়েছে সভ্য সেজে থাকা ভন্ড প্রতারক লিটন দত্ত।
ঢাকায় চাকরি করত গিয়ে আবার নোয়াপাড়া চলে আসে পরে নিজে পত্রিকা বের করে নোয়াপাড়াতে পত্রিকা সামনে রেখে চালাতো মাদক ব্যবসা তার পরে ওখান থেকে মার খেয়ে চলে আসে নড়াইলে তারপর হতে নড়াইলের নেতা সহ প্রশাসন কে হাতে রেখে চালিয়েছে অনিয়ম দুর্নিতি চাঁদাবাজি।

এদিকে যত বড় মিত্থ্যা অনিয়ম হোক না কে বিডি খবরের সম্পাদকের কাছে এলে সব মাপ টাকা দিলেই সত্যকে মিত্থ্যা আর মিত্থ্যাকে সত্য বানিয়ে দিবে মুহুর্তের মদ্ধে।
দিন রাত তদন্ত করে দুর্নিতি অনিয়মের নিউজ করলেও টাকার বিনিময়ে প্রতিবাদ দিয়ে দিচ্ছে ভন্ড নামধারী সম্পাদক চরিত্রহীন লিটন দত্ত।

এ ব্যাপারে দৈনিক বিডি খবরের সম্পাদক ও প্রকাশক লিটন দত্তকে(০১৯১০-১৯১৯১৯) ফোন করলে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category