• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
এড. আমজাদ হোসেন কখনও অর্থবিত্তের জন্য রাজনীতি করেননি-এড.ফরিদুল ইসলাম এড.আমজাদ হোসেনের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী সফলের লক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা সম্পন্ন পূর্ব বড় ভেওলা মাহমুদিয়া হেফজখানা ও এতিমখানায় সাহায্যের আবেদন চকরিয়ায় দখলবাজরা কেটে নিল সামাজিক বনায়নের শতাধিক গাছ মানবিক সাহায্যের আবেদন জাফর আলম এমপি ও জাহেদুল ইসলাম লিটু কে বিশাল সংবর্ধনা আধুনিক ও বাসযোগ্য চকরিয়া পৌরসভা রূপান্তরে কাজ করবো-মেয়র প্রার্থী এড. ফয়সাল চকরিয়ায় ছাত্রলীগ সভাপতিকে নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ চকরিয়া বিএমচর ইউপি কার্যালয়ে হামলা ও ভাংচুর, চেয়ারম্যানসহ আহত ৪ চকরিয়া কোনাখালীতে পৈতৃক ভিটা জবর দখলে নিতে সন্ত্রাসী হামলা

আটোয়ারীতে নিরলা বালার ভিক্ষায় চলে জীবন

আল মাসুদ, পঞ্চগড় জেলাপ্রতিনিধিঃ   / ৮৭ সময় দেখুন
আপডেট : বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০

পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলা মুজিব বর্ষ উপলক্ষে ভিক্ষুক মুক্ত ঘোষনা করা হলেও এখনো ভিক্ষা করে চলছে নিরলা বালার জীবন ।
জানা গেছে, উপজেলার ৫নং বলরামপুর ইউনিয়নের বটতলী, পাইকপাড়া গ্রামের  মৃত গোলারাম বর্মনের স্ত্রী । শারীরিক ভাবে বার্ধ্যকে নুইয়ে পড়লেও মিলছে না কোন সরকারি সুযোগ সুবিধা। চেয়ারম্যান মেম্বারের দাঁড়ে দাঁড়ে ঘুরেও কপালে জুটেনি বিধবা বা বয়স্ক ভাতার কার্ড । পায়নি কোন সরকারি সুযোগ সুবিধা, তাই ভিক্ষা করে চলছে জীবন জীবিকা।
নিরলা বালা জানান ,আমি অভাবের তারণায় প্রায় ২০ থেকে ২৫ বছর ধরে ভিক্ষা করে আসছি ,আমার  ছেলে ভ্যান চালিয়ে সংসার চালায় এতে চলে না, সংসারে অভাব অনটনে ঠিক মত দু বেলা খাবার জুটেনা। আমি বৃদ্ধ কাজ করতে পারি না, আমাকে কেউ কাজও দেয়না তাই জীবন বাচাঁতে ভিক্ষা করি। আমাকে মেম্বার বা চেয়ারম্যান সরকারি কোন সুযোগ সুবিধা দিলে কোন মতে বেচেঁ থাকতে পারি। বয়স্ক বা বিধবা ভাতার কার্ড করে দিলে আমি কোনদিন ভিক্ষা করবো না, আমি অনেকবার মেম্বার, চেয়ারম্যানের কাছে গেছি কার্ড করে দিতে চেয়েছে কিন্তু আজও আমার কোন কার্ড  হয়নি ।
মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ৩ মার্চ (মঙ্গলবার) উপজেলা পরিষদ চত্তরে তৎকালিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন সুলতানা’র সভাপতিত্বে, প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক, সাবিনা ইয়াসমিন ও
বিশেষ অতিথি পুলিশ সুপার, মোহাম্মদ ইউসুফ আলীসহ অন্যান্য অতিথিদের উপস্থিতিতে উপজেলার ৬ ইউনিয়ন হতে বাছাই করে ৪৯ জন ভিক্ষুককে তাদের শারীরিক ও পারিপাশ্বিক অবস্থা বিবেচনা করে কাউকে মুদি দোকান, কাউকে গরু, কাউকে ছাগল, কাউকে অটো রিক্সা ভ্যান ও মুরগি সহ নগদ অর্থ প্রদান করে ভিক্ষুক মুক্ত ঘোষণা করেন।
ইউপি সদস্য মজিরউদ্দীন বলেন ভিক্ষুক বুড়িকে করোনাকালিন সময়ে চাল দিয়েছি, এবার আমি চেষ্টা করবো বয়স্ক বা বিধবা ভাতার কার্ড করে দেওয়ার জন্য।
বলরামপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান বলেন, বিধবা ভিক্ষুককে আমার কাছে পাঠিয়ে দেন আমি ব্যবস্থা নিব।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু তাহের মো.সামসুজ্জামান জানান, উপজেলা ভিক্ষুক মুক্ত তথ্য আছে।এ ব্যাপারে মিটিং আছে, কোন ভিক্ষুক থাকলে অবশ্যই তাদের জন্য পনবার্সন করে দেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category